[Home] [Act List]  
 
বাংলাদেশ ইপিজেড শ্রম আইন, ২০১৯
( ২০১৯ সনের ২ নং আইন )
[২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯]  
 
 
ইপিজেডস্থ বা জোনস্থ শিল্প প্রতিষ্ঠানে শ্রমিক নিয়োগ, মালিক ও শ্রমিকের মধ্যে সম্পর্ক, সর্বনিম্ন মজুরির হার নির্ধারণ, মজুরি পরিশোধ, কার্যকালে দুর্ঘটনাজনিত কারণে শ্রমিকের জখমের জন্য ক্ষতিপূরণ, শ্রমিকের স্বাস্থ্য, নিরাপত্তা, ইত্যাদি বিষয়ে বিধান প্রণয়নের উদ্দেশ্যে এবং শ্রমিক কল্যাণ সমিতি গঠন এবং ইপিজেড শ্রমিক কল্যাণ সমিতি ও শিল্প সম্পর্ক বিষয়ক বিদ্যমান আইন রহিতপূর্বক উহা পুনঃপ্রণয়নকল্পে প্রণীত আইন
 
যেহেতু ইপিজেডস্থ বা জোনস্থ শিল্প প্রতিষ্ঠানে শ্রমিক নিয়োগ, মালিক ও শ্রমিকের মধ্যে সম্পর্ক, সর্বনিম্ন মজুরির হার নির্ধারণ, মজুরি পরিশোধ, কার্যকালে দুর্ঘটনাজনিত কারণে শ্রমিকের জখমের জন্য ক্ষতিপূরণ, শ্রমিকের স্বাস্থ্য, নিরাপত্তা, ইত্যাদি বিষয়ে বিধান প্রণয়নের উদ্দেশ্যে এবং শ্রমিক কল্যাণ সমিতি গঠন এবং ইপিজেড শ্রমিক কল্যাণ সমিতি ও শিল্প সম্পর্ক বিষয়ক বিদ্যমান আইন রহিতপূর্বক উহা পুনঃপ্রণয়ন করা সমীচীন ও প্রয়োজনীয়;

সেহেতু এতদ্দ্বারা নিম্নরূপ আইন করা হইল :-
 
সূচী
ধারাসমূহ
 
প্রথম অধ্যায়
প্রারম্ভিক
১। সংক্ষিপ্ত শিরোনাম, প্রয়োগ ও প্রবর্তন
২। সংজ্ঞা
৩। আইনের প্রাধান্য
দ্বিতীয় অধ্যায়
নিয়োগ ও চাকরির শর্তাবলি
৪। চাকরির শর্তাবলি
৫। শ্রমিকগণের শ্রেণি বিভাগ এবং শিক্ষানবিশিকাল
৬। নিয়োগপত্র ও পরিচয়পত্র
৭। সার্ভিস বহি, সার্ভিস বইয়ের ফরম, ইত্যাদি
৮। শ্রমিক রেজিস্টার, টিকেট, কার্ড, ইত্যাদি
৯। ছুটির পদ্ধতি
১০। অব্যয়িত ছুটি মজুরি প্রদান
১১। কাজ বন্ধ রাখা
১২। প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা
১৩। কতিপয় ক্ষেত্রে ‘‘এক বৎসর’’, ‘‘ছয় মাস’’ এবং ‘‘মজুরি’’ গণনা
১৪। ধারা ১১, ১৫, ১৬ এবং ১৭ প্রয়োগের ক্ষেত্রে বাধা-নিষেধ
১৫। লে-অফকৃত শ্রমিকগণের ক্ষতিপূরণের অধিকার
১৬। লে-অফকৃত শ্রমিকগণের মাস্টার রোল
১৭। কতিপয় ক্ষেত্রে লে-অফকৃত শ্রমিকগণ ক্ষতিপূরণ পাইবার অধিকারী হইবেন না
১৮। মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ
১৯। ছাঁটাই ও ছাঁটাইকৃত শ্রমিকের পুনঃনিয়োগ
২০। ডিসচার্জ
২১। অসদাচরণ এবং দণ্ড প্রাপ্তির ক্ষেত্রে শাস্তি
২২। বরখাস্ত, ইত্যাদি ব্যতীত অন্যভাবে মালিক কর্তৃক শ্রমিকের চাকরির অবসান
২৩। শ্রমিক কর্তৃক চাকরির ইস্তফা
২৪। চাকরি হইতে অবসর গ্রহণ
২৫। ভবিষ্য তহবিল পরিশোধ
২৬। শ্রমিকের মজুরিকাল ও মজুরি পরিশোধের মেয়াদ
২৭। চাকরি সম্পর্কিত প্রত্যয়নপত্র
২৮। অভিযোগ পদ্ধতি
তৃতীয় অধ্যায়
প্রসূতি কল্যাণ সুবিধা
২৯। প্রসূতিকালীন মহিলা শ্রমিকের কর্মে নিয়োগ নিষিদ্ধ
৩০। প্রসূতি কল্যাণ সুবিধা প্রাপ্তির অধিকার এবং প্রদানের দায়িত্ব
৩১। প্রসূতি কল্যাণ সুবিধা পরিশোধ সংক্রান্ত পদ্ধতি
৩২। প্রসূতি কল্যাণ সুবিধার পরিমাণ
৩৩। মহিলা শ্রমিকের মৃত্যুর ক্ষেত্রে প্রসূতি কল্যাণ সুবিধা প্রদান
৩৪। কতিপয় ক্ষেত্রে মহিলা শ্রমিকের চাকরির অবসানে বাধা
৩৫। স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা সম্পর্কিত সাধারণ বিধান
৩৬। বাধ্যতামূলক গ্রুপ বিমা চালুকরণ
৩৭। চিকিৎসা কেন্দ্র
চতুর্থ অধ্যায়
পেশাগত স্বাস্থ্য রক্ষা ব্যবস্থা, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, নিরাপদ কর্ম পরিবেশ, নিরাপত্তা ও কল্যাণমূলক ব্যবস্থা
৩৮। দৈনিক কর্মঘণ্টা
৩৯। বিশ্রাম বা আহারের জন্য বিরতি
৪০। সাপ্তাহিক কর্মঘণ্টা
৪১। সাপ্তাহিক ছুটি
৪২। ক্ষতিপূরণমূলক সাপ্তাহিক ছুটি
৪৩। নৈশ-পালা
৪৪। যানবাহনে কর্ম-ঘণ্টার উপর বাধা
৪৫। অধিকাল কর্মের জন্য অতিরিক্ত ভাতা
৪৬। মহিলা শ্রমিকের জন্য সীমিত কর্মঘণ্টা
৪৭। দ্বৈত চাকরির উপর বাধা
৪৮। শ্রমিকের কাজের সময়ের নোটিশ
৪৯। নোটিশ এবং রেজিস্টারের সহিত কর্মঘণ্টার মিল থাকা
৫০। নৈমিত্তিক ছুটি
৫১। পীঁড়া ছুটি
৫২। অর্জিত ছুটি
৫৩। উৎসব ছুটি
পঞ্চম অধ্যায়
কর্মঘণ্টা ও ছুটি
৫৪। মজুরির বিশেষ সংজ্ঞা
৫৫। মজুরি পরিশোধের দায়িত্ব
৫৬। মজুরি পরিশোধের সময়
৫৭। মজুরি পরিশোধের পদ্ধতি
৫৮। মজুরি হইতে কর্তনযোগ্য বিষয়াদি
৫৯। মৃত বা নিখোঁজ শ্রমিকের অপরিশোধিত মজুরি পরিশোধ
৬০। মজুরি হইতে কর্তন অথবা মজুরি বিলম্বে পরিশোধের কারণে উত্থাপিত দাবি
৬১। দাবি আদায়ের জন্য দরখাস্ত
৬২। আপিল
৬৩। মালিক অথবা মজুরি পরিশোধের জন্য দায়ী অন্য কোনো ব্যক্তির সম্পত্তির শর্তাধীন ক্রোক
৬৪। কতিপয় ক্ষেত্রে মালিকের নিকট হইতে অর্থ আদায়
সপ্তম অধ্যায়
ইপিজেড মজুরি বোর্ড
৬৫। নিম্নতম মজুরি বোর্ড প্রতিষ্ঠা
৬৬। নিম্নতম মজুরি হারের সুপারিশ
৬৭। শ্রমিকগণের নিম্নতম মজুরি হার ঘোষণা করিবার ক্ষমতা
৬৮। সুপারিশ প্রণয়নে বিবেচ্য বিষয়
৬৯। নিম্নতম মজুরি হারের পর্যায়ক্রমিক পর্যালোচনা
৭০। নিম্নতম মজুরি প্রত্যেক মালিকের উপর অবশ্য পালনীয়
৭১। নিম্নতম মজুরি হারের কম হারে মজুরি প্রদান নিষিদ্ধ
৭২। মজুরি এবং অন্যান্য সুবিধা নির্ধারণ
অষ্টম অধ্যায়
দুর্ঘটনাজনিত কারণে জখমের জন্য ক্ষতিপূরণ
৭৩। ক্ষতিপূরণ প্রদানের জন্য মালিকের দায়িত্ব
৭৪। ক্ষতিপূরণের পরিমাণ
৭৫। মজুরি হিসাবের পদ্ধতি
৭৬। পুনর্বিবেচনা
৭৭। এই আইনের অধীন আদায়যোগ্য অর্থ আদায়
৭৮। ক্ষতিপূরণের হস্তান্তর, ক্রোক বা দায়বদ্ধকরণ নিষিদ্ধ
৭৯। নোটিশ ও দাবি
৮০। মারাত্মক দুর্ঘটনা সম্পর্কে মালিকের নিকট হইতে বিবৃতি তলবের ক্ষমতা
৮১। মারাত্মক দুর্ঘটনার রিপোর্ট
৮২। চিকিৎসা পরীক্ষা
৮৩। মালিকের দেউলিয়াত্ব, বিমাকারীর দায়, ইত্যাদি
৮৪। ক্ষতিপূরণ সম্পর্কে বিবরণী
৮৫। দায়মুক্তি বা লাঘবের চুক্তি বাতিল
৮৬। কতিপয় প্রশ্ন ইপিজেড শ্রম আদালতে নিষ্পত্তির জন্য প্রেরণ
৮৭। কার্যধারার স্থান
৮৮। দরখাস্তের শর্ত
৮৯। মারাত্মক দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে ইপিজেড শ্রম আদালত কর্তৃক অতিরিক্ত জমা তলব করিবার ক্ষমতা
৯০। আপিল
৯১। আপিলের সিদ্ধান্ত সাপেক্ষে কতিপয় পরিশোধ স্থগিতকরণ
৯২। এই অধ্যায়ের অধীন বিধি প্রণয়ন
নবম অধ্যায়
শ্রমিক কল্যাণ সমিতি ও শিল্প সম্পর্ক
৯৩। শ্রমিকের বিশেষ সংজ্ঞা
৯৪। শ্রমিক কল্যাণ সমিতি গঠন
৯৫। শ্রমিক কল্যাণ সমিতি নিবন্ধনের জন্য আবেদন
৯৬। শ্রমিক কল্যাণ সমিতির গঠনতন্ত্র
৯৭। শ্রমিক কল্যাণ সমিতির নিবন্ধন
৯৮। শ্রমিক কল্যাণ সমিতির নিবন্ধন সম্পর্কিত সনদ
৯৯। গঠনতন্ত্র এবং নির্বাহী পরিষদের কতিপয় পরিবর্তনের ক্ষেত্রে নোটিশ প্রদান
১০০। শ্রমিক কল্যাণ সমিতির সংখ্যা সম্পর্কিত সীমাবদ্ধতা
১০১। শিল্প ইউনিটের মালিকানা নির্ধারণ
১০২। শ্রমিক কল্যাণ সমিতির সদস্যপদ এবং কর্মকাণ্ড
১০৩। নির্বাহী পরিষদের নির্বাচন
১০৪। নির্বাহী পরিষদের অনুমোদন
১০৫। নির্বাহী পরিষদের মেয়াদ
১০৬। পরবর্তীতে নির্বাচন অনুষ্ঠান
১০৭। শ্রমিক কল্যাণ সমিতির সদস্য হইবার অযোগ্যতা
১০৮। নিবন্ধিত শ্রমিক কল্যাণ সমিতি কর্তৃক রেজিস্টার, ইত্যাদি সংরক্ষণ
১০৯। শ্রমিক কল্যাণ সমিতির নিবন্ধন বাতিল
১১০। নিবন্ধন বাতিলের বিরুদ্ধে আপিল
১১১। নিবন্ধন ব্যতিরেকে শ্রমিক কল্যাণ সমিতি কর্তৃক কার্য সম্পাদন নিষিদ্ধ
১১২। নিবন্ধিত শ্রমিক কল্যাণ সমিতি একটি সংবিধিবদ্ধ সংস্থা
১১৩। শ্রমিক কল্যাণ সমিতির ফেডারেশন
১১৪। মালিক সমিতি
১১৫। মালিকের তরফে অন্যায় আচরণ
১১৬। শ্রমিক বা শ্রমিক কল্যাণ সমিতির তরফে অন্যায় আচরণ
১১৭। চুক্তির বলবৎযোগ্যতা
১১৮। হিসাব ও তথ্য দাখিল
১১৯। যৌথ দর-কষাকষি এজেন্ট (Collective Bargaining Agent)
১২০। চাঁদা কর্তন
১২১। শ্রমিক কল্যাণ সমিতির প্রতিনিধিদের চাকরি নিরাপত্তা সম্পর্কিত বিশেষ বিধান
১২২। অংশগ্রহণকারী কমিটি
১২৩। অংশগ্রহণকারী কমিটির কাজ
দশম অধ্যায়
মীমাংসা এবং সালিশ
১২৪। শিল্প বিরোধ সম্পর্কে আলাপ-আলোচনা
১২৫। মীমাংসাকারী, সালিশকারী ও কাউন্সিলর নিয়োগ
১২৬। ধর্মঘটের নোটিশের পূর্বে মীমাংসা, ইত্যাদি
১২৭। ধর্মঘট অথবা লক-আউটের নোটিশ
১২৮। ধর্মঘট বা লক-আউটের নোটিশ জারির পর মীমাংসা
১২৯। মীমাংসাকারীর কার্যপদ্ধতি
১৩০। সালিশ
১৩১। ধর্মঘট এবং লক-আউট
একাদশ অধ্যায়
ইপিজেড শ্রম আদালত, ইপিজেড শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল, ইত্যাদি
১৩২। ইপিজেড শ্রম আদালতের নিকট দরখাস্ত
১৩৩। ইপিজেড শ্রম আদালত
১৩৪। ইপিজেড শ্রম আদালতের কার্যপদ্ধতি ও ক্ষমতা
১৩৫। ইপিজেড শ্রম আদালতের রোয়েদাদ ও সিদ্ধান্ত
১৩৬। ইপিজেড শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল
১৩৭। ইপিজেড শ্রম আদালত ও ইপিজেড শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন সম্পর্কিত বিশেষ বিধান
১৩৮। নিষ্পত্তি বা রোয়েদাদ যাহাদের উপর বাধ্যকর
১৩৯। মীমাংসা, রোয়েদাদ, ইত্যাদি কার্যকর হইবার তারিখ
১৪০। কার্যক্রমের সূচনা ও সমাপ্তি
১৪১। কতিপয় বিষয়ের গোপনীয়তা সংরক্ষণ
১৪২। শিল্প বিরোধ উত্থাপন
১৪৩। কার্যক্রম চলাকালীন ধর্মঘট বা লক-আউটের নোটিশ প্রদানের উপর নিষেধাজ্ঞা
১৪৪। ইপিজেড শ্রম আদালত ও ইপিজেড শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালের ধর্মঘট, ইত্যাদি নিষিদ্ধকরণের ক্ষমতা
১৪৫। বেআইনী ধর্মঘট ও লক-আউট
১৪৬। কার্যক্রম চলাকালে চাকরির শর্ত অপরিবর্তিত থাকা
১৪৭। কতিপয় ব্যক্তির নিরাপত্তা বিধান
১৪৮। পক্ষদের প্রতিনিধিত্ব
১৪৯। মীমাংসা এবং রোয়েদাদের ব্যাখ্যা
১৫০। মীমাংসা বা রোয়েদাদ অনুযায়ী মালিকের নিকট হইতে পাওনা টাকা আদায়
দ্বাদশ অধ্যায়
দণ্ড ও বিচার
১৫১। অন্যায় আচরণের জন্য দণ্ড
১৫২। মীমাংসা ভঙ্গ করিবার জন্য দণ্ড
১৫৩। মীমাংসার শর্ত, রোয়েদাদ বা সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন না করিবার দণ্ড
১৫৪। মিথ্যা বিবৃতি প্রদানের দণ্ড, ইত্যাদি
১৫৫। বেআইনী ধর্মঘট বা লক-আউটের জন্য দণ্ড
১৫৬। বেআইনী ধর্মঘট বা লক-আউট করিতে প্ররোচনা দানের দণ্ড
১৫৭। ধারা ১৪৬ এর বিধান লংঘন করিবার দণ্ড
১৫৮। ভবিষ্য তহবিল এবং শ্রমিক কল্যাণ তহবিলের তসরুফ বা অর্থ আত্মসাতের দণ্ড
১৫৯। অন্যান্য অপরাধের দণ্ড
১৬০। ধারা ১২৯ এর বিধান লংঘন করিবার দণ্ড
১৬১। কোম্পানি কর্তৃক অপরাধ সংঘটন
১৬২। অপরাধের বিচার
১৬৩। অভিযুক্তি তামাদি
ত্রয়োদশ অধ্যায়
ভবিষ্য তহবিল
১৬৪। ভবিষ্য তহবিল গঠন
১৬৫। ভবিষ্য তহবিল অক্রোকযোগ্য
১৬৬। অন্য কোনো কর্জের উপর চাঁদা প্রদান অগ্রাধিকার পাইবে
চতুর্দশ অধ্যায়
প্রশাসন, পরিদর্শন ইত্যাদি
১৬৭। নির্বাহী পরিচালক (শ্রম ও শিল্প সম্পর্ক), ইত্যাদি
১৬৮। প্রধান পরিদর্শক, ইত্যাদি
১৬৯। মহাপরিদর্শক, পরিদর্শন, ক্ষমতা ইত্যাদি
১৭০। অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক, পরিদর্শন, ক্ষমতা ইত্যাদি
১৭১। আপিল
পঞ্চদশ অধ্যায়
মালিক-ক্রেতা-শ্রমিক অংশগ্রহণ তহবিল, ইত্যাদি
১৭২। মালিক-ক্রেতা-শ্রমিক অংশগ্রহণ তহবিল গঠন ও উদ্দেশ্য
১৭৩। মালিক-ক্রেতা-শ্রমিক অংশগ্রহণ তহবিলের অর্থের উৎস, ইত্যাদি
১৭৪। মালিক-ক্রেতা-শ্রমিক অংশগ্রহণ তহবিল পরিচালনা, ব্যবস্থাপনা, অর্থ ব্যয়, ইত্যাদি
ষোড়শ অধ্যায়
বিবিধ
১৭৫। অপ্রাপ্ত-বয়স্ক শ্রমিক নিয়োগে বাধা-নিষেধ
১৭৬। জোরপূর্বক বা বল প্রয়োগে কর্মে নিয়োগে বাধা-নিষেধ
১৭৭। নিয়ন্ত্রণ বহির্ভূত বিপর্যয় বা ক্ষতির কারণে মালিক-শ্রমিকের সম্পর্ক
১৭৮। শ্রমিক কল্যাণ সমিতি শ্রমিক কল্যাণ সমিতির ফেডারেশনের কতিপয় কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ
১৭৯। তহবিল গঠন
১৮০। নির্বাহী চেয়ারম্যানের ক্ষমতা ও দায়িত্ব
১৮১। নির্বাহী চেয়ারম্যান কর্তৃক ক্ষমতা অর্পণ
১৮২। নির্বাহী চেয়ারম্যান কর্তৃক সময় বর্ধিতকরণ
১৮৩। জনসেবক
১৮৪। আইনের বিধান হইতে অব্যাহতি প্রদান
১৮৫। নকশা অনুমোদন এবং কারখানা ভবন নির্মাণ
১৮৬। কতিপয় আদেশের বিরুদ্ধে আপিল
১৮৭। শ্রমিকগণের দায়িত্ব
১৮৮। মালিকের দায়-দায়িত্ব
১৮৯। মহিলাদের প্রতি আচরণ
১৯০। নোটিশ জারি ও বিবরণী পেশ
১৯১। শ্রমিক কল্যাণ সমিতির নির্বাচনের পর্যবেক্ষণ, পদ্ধতি ইত্যাদি
১৯২। কতিপয় ক্ষেত্রে চাকরির বর্তমান শর্তাবলী সংরক্ষণ
১৯৩। আইন, বিধি এবং প্রবিধানের সার-সংক্ষেপ প্রদর্শন
১৯৪। তথ্য সংগ্রহের ক্ষমতা
১৯৫। আদেশ, নোটিশ, ব্যাখ্যা বা সার্কুলার জারির ক্ষমতা
১৯৬। নিয়োগ সম্পর্কে অনুমান
১৯৭। সমকাজের জন্য সম-মজুরি প্রদান
১৯৮। সাধারণ ক্ষেত্রে কোর্ট ফি
১৯৯। কতিপয় প্রশ্ন, ইত্যাদি সম্বন্ধে বাধা-নিষেধ
২০০। সরল বিশ্বাসে কৃত কাজ-কর্ম রক্ষণ
২০১। অন্য আদালতের এখতিয়ারের উপর বাধা-নিষেধ
২০২। তপশিল সংশোধনের ক্ষমতা
২০৩। বিধি প্রণয়নের ক্ষমতা
২০৪। প্রবিধান প্রণয়নের ক্ষমতা
২০৫। ২০১০ সনের ৪৩নং আইন এর রহিতকরণ ও হেফাজত
২০৬। রহিতকরণ ও হেফাজত
২০৭। ইংরেজিতে অনূদিত পাঠ প্রকাশ
তফসিল
   

Copyright © 2010, Legislative and Parliamentary Affairs Division
Ministry of Law, Justice and Parliamentary Affairs